তিওমান দ্বীপে যাওয়ার ব্যবস্থা

বেশীর ভাগ পর্যটকদের কুয়ালা লামপুর ইন্টারন্যাশনাল বিমানবন্দর, পেনাং, কুচিং, কোটা কিনাবালু এবং ল্যাংকাউয়ি থেকে কানেক্টিং ফ্লাইটের প্রয়োজন হবে তিওমান আসার ক্ষেত্রে। যারা সিঙ্গাপুর থেকে আসবেন তারা বারজাভা এয়ারের সৌজন্যে সরাসরি ফ্লাইট পাবেন তিওমানের কামপুং তেকেক এয়ারপোর্টে আসার।

স্থলপথ
আপনি তিওমানে আসার জন্য ট্যাক্সি ভাড়া করতে পারেন। এসব ট্যাক্সি সস্তায় পাওয়া মুশকিল, গড় রেট হলো ১০০ রিঙ্গিত। সাশ্রয়ীভাবে আসতে হলে বাসে ভ্রমণ করা যেতে পারে। তিওমান দ্বীপে আসার বেশীর ভাগ বাসই এক্সপ্রেস বাস, এটা নির্ভর করে আপনি কোন টারমিনাল থেকে যাত্রা করবেন এবং ভাড়া ৮ থেকে ১৫ আরএম। এই এক্সপ্রেস বাসগুলি আপনাকে নামিয়ে দিতে পারে আপনার চাহিদামতো জায়গায় যেমন জালান আবু বাকারে যেখানে আপনি গেস্টহাউজ বেছে নিতে পারেন অথবা এমবাসী হোটেলের সম্মুখে নামতে পারেন যেটা হোটেল রিজার্ভেশনের জন্য আদর্শ ।

নৌপথে
স্পীড বোটে সর্বোচ্চ ২০ জন যাত্রী আসতে পারে যেখানে ফেরীতে সর্বোচ্চ ১৫০ যাত্রী আসতে পারেন। এইসব ট্রিপে দুই ঘন্টার বেশী সময় লাগে না। স্পীড বোট অথবা ফেরীতে আসার একটা সুবিধা হলো আপনি দ্বীপের যেকোন জায়গায় চাইলেই নামতে পারবেন। এই ভ্রমণে আপনার ৯০ আরএম খরচ হবে।

Social Media