দিল্লী দর্শনীয় স্থানসমূহ

বানিজ্যিক কেন্দ্রবিন্দু দিল্লীতে বেশ কিছু দর্শনীয় স্থান রয়েছে। দিল্লীতে বিভিন্ন ধরনের মন্দির রয়েছে তার প্রধান হচ্ছে পব্ম মন্দির, হনুমান মন্দির, কালকা দেবী মন্দির, লক্ষী নারায়ন মন্দির। এই সুন্দর মন্দির গুলি শুধু প্রাচীন ও বিখ্যাত তীর্থস্থানই নয় এর নির্মানশৈলী এ পর্যন্ত সৃষ্ট স্থাপত্য শিল্পের মধ্যে প্রধান। মন্দিরে বড় বড় উতসবে সারা বিশ¦ থেকে পুন্যার্থিগন শরিক হন।

একইভাবে দিল্লীর মসজিদগুলি মুঘল স্থাপত্যের শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি। গুরুত্বপূর্ণ মসজিদগুলি হলো বেগমপুরী মসজিদ, জুমা মসজিদ, গুমবড় মসজিদ এবং ফতেহপুরী মসজিদ। অন্যান্য ধর্মীয় তীর্থস্থানের পাশাপাশি ভারতে প্রচুর চার্চও রয়েছে। ক্যাথোলিক চার্চ, প্রোটেস্ট্যান্ট চার্চসহ দিল্লীতে প্রচুর চার্চ ছড়িয়ে আছে।

দিল্লী দুর্গ
ছোট ও বড় মিলিয়ে প্রচুর দুর্গ রয়েছে যেগুলি সারা বিশে¦র দর্শনার্থীদের আকর্ষণ করে। এই দুর্গগুলি অতীতের জীবনযাপনের ধরন ও সৌন্দর্যকে প্রদর্শন করে। এগুলির পশ্চাতে অনেক কাহিনী লুকিয়ে আছে। প্রধান দুর্গগুলি যেগুলি অবশ্য দর্শনীয়- লাল দুর্গ এবং পুরাতন দুর্গ। এই স্মৃতিসৌধগুলি সরকারীভাবে ভালভাবে সংরক্ষিত যাতে আর কোন ক্ষতিসাধন হতে না পারে।

দিল্লীর অন্যান্য দর্শনীয় স্থানসমূহ
দিল্লীর অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ দর্শনীয় স্থানগুলি হলো অভিষেক দরবার সাইট, রাজ ঘাট, জন্তর মন্তর, কুতুব মিনার, ইন্ডিয়া গেট, সেক্রেটারিয়েট বিল্ডিং, রাষ্ট্রপতি ভবন, পার্লামেন্ট ভবন, জাতীয় যাদুঘর, ন্যাশনাল গ্যালারী অব মডার্ণ আর্ট, নেহরু যাদুঘর, রেল যোগাযোগ মিউজিয়াম, আন্তর্জাতিক ডল্‍স যাদুঘর, ক্রাফ্‍টস মিউজিয়াম, গান্ধী দর্শন, পুরানা কিল্লা, চিড়িয়াখানা, সফদার জং এর সমাধি এবং বাহাই হাউস অব ওয়োরশীপ।

দিল্লীর যোগাযোগ ব্যবস্থা
দিল্লীতে ভ্রমণ ও যোগাযোগ অন্যান্য মেট্রো নগরীর তুলনায় অনেক সহজ। রাস্তাগুলি প্রশস্ত এবং যানজট বিরল। দিল্লিতে খুবই দক্ষ বাস সার্ভিস এবং নিয়ন্ত্রিত ট্রেন সার্ভিস রয়েছে। এগুলি ছাড়াও ট্যাক্সি ক্যাব ও অটো রিকশা সার্ভিস রয়েছে। অটো রিকশা চালক যাদেরকে অটোওয়ালা বলা হয় তাদের সাথে ডিল করা একটা শিল্পকলা, তারা আপনার ধৈর্য ও পকেট উভয়ই পরীক্ষা করে থাকে শেষ পর্যন্ত আপনার ভাল একটা অভিজ্ঞতা জুটবে।

আক্ষরিক অর্থে দিল্লীর সর্বত্রই আপনি দেখবেন এসটিডি/আইএসডি বুথ যেখানে আপনি ফ্যাক্স এমনকি ইন্টারনেট সুবিধাও পেয়ে যেতে পারেন।

Social Media