জিলিন প্রদেশ সম্পর্কে

চীনের উত্তর-পূর্ব অংশে জিলিন প্রদেশ অবস্থিত।

জিলিন প্রদেশের লিয়াওনিং প্রদেশ, পূর্বে উত্তর কোরিয়া ও রাশিয়া, পশ্চিমে ইনার মঙ্গোলিয়া স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চল এবং উত্তরে হেইলংজিয়াং প্রদেশের সাথে সিমান্ত রয়েছে।

জিলিন এর ভৌগলিক অবস্থান
বাইয়ুন পর্বত জিলিন প্রদেশের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ যার উচ্চতা ২৬৯১ মিটার। জিলিনহাদা, লংগান এবং ঝাং গুয়াংকাই হলো জিলিনের অন্যান্য পর্বতমালা।

ঈয়ালু নদী ও টুমেন জিলিনের দক্ষিণ-পশ্চিমে বয়ে যাওয়া নদী এগুলো উত্তর কোরিয়ার সাথে সীমান্তের কাজ করছে।

সিপিং, জিলিন শহর, বাইচেং, চ্যাংচুন সংগিয়ুন, ঈয়ানজি, টংহুয়া এবং লিয়াওইউয়ান হলো অন্যান্য শহরগুলোর মধ্যে অন্যতম।

জিলিনের জলবায়ু
মহাদেশীয় মৌসুমী জলবায়ুর প্রভাবে জিলিনে ৩৫০ থেকে ১০০০ মি.মি. বৃষ্টিপাত হয় এবং প্রদেশের শীতকাল তীব্রতাসম্পন্ন।

জিলিনের অর্থনীতি
জিলিন মূলতঃ কৃষিজাত উতপন্নকারী প্রদেশ এবং এখানে ভুট্টা, ধান এবং সরগাম জন্বে। ইয়ানবিয়ান জেলায় ধান চাষ প্রধান অর্থকরী। পশ্চিম জিলিন ভেড়া পালনের জন্য বিখ্যাত।

শিল্পের মধ্যে অটোমোবাইল, বহনকারী ট্রেন এবং এলয় শিল্প বিখ্যাত।

২০০৭ সালে জিলিনের জিডিপি ৫২২.৬ বিলিয়ন ছিল যেটা চীনের জাতীয় অর্থনীতিতে ২২ তম স্থান। মাথাপিছু উপার্জন ছিল ১৯,১৬৮ ইউয়ান।
জিলিনে প্রধান ভ্রমণযোগ্য স্থানসমূহ

ভিজিটররা আসতে পারেন ওয়ান্ডু, গুংনা দুর্গ, গোগুরিও সাইট ও সমাধি এবং পিরামিডাকৃতি সমাধি ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটের অন্তর্ভূক্ত। প্রাকৃতিক দৃশ্যের জন্য জনপ্রিয় ভ্রমণ স্থান বায়েকডু পর্বত সেইসাথে রয়েছে লেক হ্যাভেন যেটা উত্তর কোরিয়ার সাথে সীমান্তচিহ্নিত।

যদি আপনার সময় থাকে তবে আপনার ইয়ানবিয়ান কোরীয় স্বায়ত্বশাসিত জেলায় আসা উচিত যেখানে বালহাই রাজ্যের প্রাচীন রাজকীয় সমাধি রয়েছে, লংতাউ পর্বতেও সমাধি রয়েছে যেমন প্রিন্সেস ঝেন জিয়াও এর সমাধিসৌধ।

Social Media