গুয়াংডং প্রদেশকে জানুন

গুয়াংডং চীনের দক্ষিণাংশে অবস্থিত। এটি সিচুয়ান ও হেনান প্রদেশের মালিকানা গ্রহন করেছে এবং গুয়াংডং এখন চীনের মধ্যে সবচেয়ে সুস্থিত প্রদেশ।

গুয়াংডং এর রাজদানী হচ্ছে গুয়াংঝূ এবং এটি হচ্ছে দক্ষিণের শিল্প প্রবেশদ্বার আর হংকং থেকে শুধু একঘন্টার পথ।

ষোড়শ শতকে গুয়াংডং এর সাথে বাকী দুনিয়ার প্রশস্ত বানিজ্যিক সম্পর্ক বিদ্যমান ছিল। পর্তুগীজ ও বৃটিশরা গুয়াংডং প্রদেশের সাথে ব্যবসা করত এবং তারা প্রধানতঃ গুয়াংঝুকে বানিজ্যিক পয়েন্ট হিসেবে ব্যবহার করত।

গুয়াংডং প্রদেশের ইতিহাস
আফিমের যুদ্ধ শুরু হয়েছিল গুয়াংঝুতে আফিম বাজারজাতকরণের কারণে এবং গুয়াংডং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছিল দিন মজুরদের জন্যে যারা পরবর্তীতে বৃটেন, মালয়, কানাডা, আমেরিকা, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড এবং বৃটিশ উপনিবেশ সিঙ্গাপুরে।

গুয়াংডং প্রদেশের ভৌগলিক অবস্থান
গুয়াংডং প্রদেশের ৪৩০০ কি.মি. সমুদ্র সৈকত রয়েছে।

প্রদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমে রয়েছে লেই ঝু পেনিনসুলা যেখানে এখনও কয়েকটি নিষ্ক্রিয় আগ্নেয়গিরি রয়েছে। পার্ল রিভার ব-দ্বীপ গঠিত হয়েছে শত শত ছোট ছোট দ্বীপের সমন্বয়ে।

গুয়াংডং প্রদেশের উত্তর-পূর্বে ফুজিয়ান প্রদেশ, পশ্চিমে গুয়াংজি প্রদেশ, হংকং ও ম্যাকাউ এর বিশেষায়িত প্রশাসনিক অঞ্চল এবং দক্ষিণে রয়েছে জিয়াংসি ও হুনান প্রদেশ এবং লেই ঝূ পেনিনসুলার অপর পারে রয়েছে হাইনান দ্বীপ।

গুয়াংডং প্রদেশের প্রধান শহরগুলি হচ্ছে শ্যানটূ, শেনঝেন, গুয়াংঝু যেটা গুয়াংডং প্রদেশের রাজধানীও, হুইঝু এবং শেনঝেন। গুয়াংডং প্রদেশের বেশীরভাগ শহরগুলিই পার্ল নদী ব-দ্বীপের আশপাশে অবস্থিত।
গুয়াংডং প্রদেশের জলবায়ু

গ্রীষ্মের মাসগুলিতে গুয়াংডং এ আদ্রতা ও গরম বেশী থাকে কিন্ত্ত সুসংবাদ হচ্ছে শীতকাল এখানে খুব স্বল্প সময় স্থায়ী থাকে।

গুয়াংডং প্রদেশের স্থানীয় অর্থনীতি
২০০৭ সালে গুয়াংডং এর উতপাদন খাতে অবদান ছিল ১.৩ মিলিয়ন ইউয়ান। এটি ছিল মোট জাতীয় অর্থনৈতিক অবদানের প্রায় ১২.৫% অংশ। গুয়াংডং এর মাথাপিছু জিডিপি ৩২,৭১৩ ইউয়ানে পৌছেছে। শেনঝেন, জুহাই এবং শ্যানটূ হচ্ছে গুয়াংডং প্রদেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক অঞ্চল।

২০০৭ সালে বৈদেশিক বানিজ্য ২০০৬ সালের তুলনায় ২০% বেশী প্রবৃদ্বি লাভ করে। এ সময়ে গুয়াংডং এর রফতানী বানিজ্য ছিল ২.১৭ ট্রিলিয়ন ইউএস ডলারের চীনা র্তানী রাজস্বের ২৯% এর কাছাকাছি।
গুয়াংডং প্রদেশে ভ্রমণ আকর্ষণ

গুয়াংডং প্রদেশে ভ্রমণকারীদের জন্য প্রচুর দর্শনীয় স্থান রয়েছে। যেমন, স্টার লেক এবং সেভেন স্টার পাহাড় এবং সেইসাথে রয়েছে ডানসিয়া ও ডিংহুয়া পর্বত।

Social Media