ইনার মঙ্গোলিয়া’কে

ইনার মঙ্গোলিয়া স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলের রয়েছে ৩০২ মিলিয়ন একরের ভূমি যা চীনের মোট ভূমির ১২%। হোহহোট হচ্ছে ইনার মঙ্গোলিয়ান স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চলের রাজধানী। ২০০৪ সনের শুমারী অনুযায়ী ইনার মঙ্গোলিয়ায় ২৫ মিলিয়ন লোক বাস করে।

ইনার মঙ্গোলিয়ান স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চলের সাথে হেইলংজিয়াং, জিলিন, লিয়াওনিং, হেবেই, শানজি, শানসি, গানসু এবং নিংসিয়া হুই স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চলের সীমান্ত রয়েছে। রাশিয়া এবং মঙ্গোলিয়ার সাথেও এর সীমান্ত রয়েছে।

ইনার মঙ্গোলিয়ার প্রধান শহরগুলোর মধ্যে রাজধানী শহর হোহহোট সেইসাথে হুলানবুইয়ার, ওরডোস, টংলিয়াও, উলানকাব, উহাই বাওতাউ এবং বাইয়ান নুর শহর।

ইনার মঙ্গোলিয়ার ইতিহাস
১২০৬ খৃস্টাব্দে চেংগিস খান মোঙ্গল জাতিসমূহকে একত্রিত করেন এবং তাঁর সৈন্যরা ১২৭৯ খৃস্টাব্দে চীন দখল করে।

ইনার মঙ্গোলিয়ার অর্থনীতি
ইনার মঙ্গোলিয়ার নদী অববাহিকায় গমের চাষ হয়। ইনার মঙ্গোলিয়া স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চলে প্রচুর পরিমানে প্রাকৃতিক সম্পদ যেমন কয়লা, প্রাকৃতিক গ্যাস, নিওবিয়াম, জারকোনিয়াম এবং বেরিলিয়াম মওজুদ আছে। চীনের উত্তরে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কয়লা শিল্প রয়েছে এখানে। ২০০৭ সনে ইনার মঙ্গোলিয়ার জিডিপি ছিল ৬০০ বিলিয়ন ইউয়ান সেইসাথে চমকে দেয়ার মতো বার্ষিক ১৯% প্রবৃদ্ধি কিন্ত্ত জিডিপি হলো বার্ষিক ২৫০০০ ইউয়ান। রাজধানী শহর হোহহোটের আবাসিক মার্কেট দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং এখানে নতুন নতুন এপার্টমেন্ট বিল্ডিং ও প্রচুর অফিসার’স টাওয়ার তৈরী হচ্ছে।

ইনার মঙ্গোলিয়ার সংস্কৃতি
ইনার মঙ্গোলিয়ায় বিভিন্ন উপভাষায় অধিবাসীদের কথা বলতে দেখা যায় যেমন চাহার, ইজিন-এলেক্সা এবং বারঘু-বুরিয়াত। ইনার মঙ্গোলিয়ায় চীনা সংখ্যালঘু সম্প্রদায় সমূহের নিজস্ব ভাষা ও কথ্যরীতি রয়েছে। ক্লাসিক মঙ্গোল স্ক্রিপ্ট এখনও ইনার মঙ্গোলিয়ায় রয়েছে সাইরিলিক বর্ণমালাও আউটার মঙ্গোলিয়ায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে। জাতিগত মঙ্গোলরা এখন কমপক্ষে একটি চীনা কথ্য ভাষায় পারদর্শী।

ইনার মঙ্গোলিয়ায় আকর্ষণীয় ভ্রমণ স্থান সমূহ
১৫৮০ সালে হোহ্‍হটে নির্মিত ডাজাও টেম্পল ট্যুরিস্টদের জন্য ভ্রমন বাধ্যতামূলক। আপনার যদি যথেষ্ট সময় থাকে তাহলে অবশ্যই ১৬৯৭ সালে নির্মিত জিয়াওঝাউ টেম্পল পরিদর্শন করবেন অথবা ওরডোসে চেঙ্গিস খানের সমাধিসৌধ পরিদর্শন করবেন।

Social Media